রান্নার সহবত

ওয়ালিউননেসা ইনু, চিফ কনসালটেন্ট, ডায়েট এ্যন্ড ফিট ০১:১৮ মিঃ, সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৮ Views : 265

বহুকাল আগে থেকে এ বাংলা ভাষাভাষী আঞ্চলে বিভিন্ন প্রকার রান্নার প্রচলন । একই খাবারের ভিন্ন ভিন্ন রান্না, মশলার ব্যবহার এবং পরিবেশন খাবারে আনে বৈচিত্র্য । কম বেশি সব পরিবারেই খাবার তৈরির নিজস্ব কিছু বৈশিষ্ট্য আছে। তবে বর্তমানে এই মিডিয়া নির্ভর আধুনিক যুগে খুব সহজেই দেশি বিদেশী ও বিভিন্ন আঞ্চলিক রান্নার  কদর, বাড়ছে ভিন্নতা। তবে রান্না যে দেশের বা যে অঞ্চলের হোক না কেন রান্নাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ কারণ  রান্নার উপর নির্ভর করে সুস্বাস্থ্য। তাই রান্নার কিছু সহবত সবসময় মেনে চলা উচিৎ।  তা কেমন? রান্নার সময় খুবই গুরুত্বপূর্ণ পরিষ্কার-পরিছন্নতা। এক্ষেত্রে রাঁধুনি, রান্না ঘর , রান্নার সরঞ্জাম, রান্নার উপকরণ এবং ব্যবহার এর পানি পরিষ্কার হওয়া বাঞ্ছনীয়। 

প্রথমেই আসি রাঁধুনির প্রসঙ্গে, রাঁধুনি বা যিনি রান্না করবেন তার সুস্থতা খুবই জরুরী। কোন রকম সংক্রামক ব্যধি, ডায়রিয়া, হেপাটাইটিস ইত্যাদি অসুখে খাবার তৈরির কাজ না করাই ভাল। এছাড়া খাবার তৈরির সময় চুল ভাল ভাবে বাধা থাকতে হবে এবং নখ অবশ্যই  যেন ছোট করে কাটা থাকে এতে করে কিছুটা হলেও রোগ সংক্রমণ কম হবে। এর পাশাপাশি বিভিন্ন ধরণের হাতের অলঙ্কার পরিষ্কার পরিছন্নতার অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায় তাই রান্নার সময় হাতের অলঙ্কার না পরাই ভাল। রান্না ঘর এমন একটা জায়গা যেখানে আমরা দিনের বেশ কিছুটা সময় কাটাই তাই রান্নাঘর সবসময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন এবং বিজ্ঞান সম্মত হওয়া খুব জরুরী । আধুনিক যুগে রান্নাঘর সাধারণত নানা রকম রান্নার সরঞ্জাম, ওভেন, চিমনী, কেবিনেট ইত্যাদি থাকে । 

এ সব কিছুই  নির্দিষ্ট সময় পর পর পরিস্কার করতে হবে তাতে করে পোকা মাকড় এর উপদ্রব কমবে এবং রোগ সংক্রমণ কম হবে। রান্নার উপকরণ অর্থাৎ চাল, ডাল, সবজি, মাছ মাংস , মসলা ইত্যাদির প্রত্যেকটার শুধু পরিষ্কার 
পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি সঠিক সংরক্ষণ ব্যবস্থা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শুকনা খাবার যেমন চাল,ডাল, মশলা,- এ ধরণের খাবার গুলো বায়ু নিরোধক পাত্রে রাখতে হবে আর নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় রাখতে হবে। এ ধরনের খাবার গুলো বিশেষ করে গুড়া মশলা বাতাসে এবং তাপে নষ্ট হয়ে যায় । ইদানিং কালে plastic  ব্যবহার অনেক বেড়েছে, কিন্তু খাদ্য সংরক্ষণ এর জন্য কাঁচের পাত্র সবচেয়ে ভাল, কারণ কাঁচের সাথে খাবারের রাসায়নিক বিক্রিয়া কম হয় । সবশেষে পানির কথায় আসি, আমরা  খাবার সময় সবসময় ফুটানো বিশুদ্ধ পানিই খাই কিন্তু  রান্নার জন্য যে পানি ব্যবহার হয় সেটা ও পরিষ্কার হওয়া অত্যন্ত জরুরি। অল্প সময় ও তাপে রান্না  করা খাবার সব সময় বিশুদ্ধ পানিতে হওয়া দরকার। 

খাদ্য প্রস্তুত বা রান্না এক প্রকারের বিজ্ঞান, সুতরাং সুস্থ থাকতে সুষম খাবার গ্রহন এবং রান্নার কিছু সহবত মেনে চলাই যথেষ্ট।